টোটকা

কিছু কথা প্রফেসর শঙ্কুকে নিয়ে

  • প্রফেসর ত্রিলোকেশ্বর শঙ্কুর জন্ম ১৬ জুন। তাঁর বাবা ত্রিপুরেশ্বর শঙ্কু ছিলেন গিরিডি শহরের বিখ্যাত কবিরাজ।
  • মেধাবী শঙ্কু পরীক্ষায় কখনো সেকেন্ড হন নি। ১২ বছরে ম্যাট্রিক, ১৪ বছরে আই.সি.এস, ১৬ বছরে ফিজিক্স আর কেমিস্ট্রিতে অনার্স সহ বি.এস সি পাস করে ২০ বছর বয়সে কলকাতার স্কটিশ চার্চ কলেজে ফিজিক্স পড়ানো শুরু করেন।
  • নিউটন ছিল শঙ্কুর পোষা বেড়াল। শঙ্কুর প্রধান সহকারী ছিলেন প্রহ্লাদ। শঙ্কুর বিভিন্ন অভিযানের সঙ্গী হয়েছেন প্রতিবেশী অবিনাশচন্দ্র মজুমদার, নকুড় চন্দ্র বিশ্বাস এবং কয়েকজন বিদেশী গবেষক। নকুড় চন্দ্র বিশেষ শক্তির সাহায্যে কোনো মানুষের ভাবনাকে ছবির মতো সেই ব্যক্তির সামনে তুলে ধরতে পারতেন।

প্রফেসর শঙ্কুর বিশেষ কিছু আবিষ্কারঃ 

  • কসৌলি পাহাড়ের জঙ্গলে স্বর্ণপর্ণী বা সোনপাত্তি গাছের পাতা থেকে তৈরি ‘মিরাকিউল’ ওষুধ সকল প্রকার রোগ সারিয়ে দিত।
  • শঙ্কুর ডায়েরি লাল রঙের। এতে সবুজ কালি দিয়ে লেখা শুরু হয় কিন্তু নিমেষেই সবুজ রং পাল্টে প্রথমে লাল, পরে নীল হয়ে যায়। সুন্দরবনের মাথারিয়া অঞ্চলে উল্কাপাতের ফলে তৈরি এক গর্তে তারক চ্যাটার্জ্জী নামক এক ব্যক্তি এই ডায়েরিটি খুঁজে পান। মনে করা হত ডায়েরিটি অবিনশ্বর। কিন্তু একবার পড়ে ফেলার সাথে সাথে পিঁপড়েরা সম্পূর্ণ ডায়েরিটাকেই খেয়ে ফেলেছিল।
  • বিধুশেখর হল প্রফেসর শঙ্কুর তৈরি প্রথম রোবট। রোবু রোবট তৈরিতে খরচ হয়েছিল তিনশো তেত্রিশ টাকা সাড়ে সাত আনা যা দশ সেকেন্ডের মধ্যে যেকোনো অঙ্ক সমাধান করতে পারত। পরে তৈরি কম্পু নামক যে যন্ত্র সমস্ত প্রশ্নের উত্তর জানত।
  • অ্যানাইহিলিন পিস্তল বিনা রক্তপাতে শত্রুকে হাওয়ায় বিলীন করে দিতে পারত।
  • এয়ারকন্ডিশনিং পিল জিভের তলায় রাখলে খুব গরমেও ঠাণ্ডা বোধ হত।
  • রিমেমব্রেন বড়ি স্মৃতি ফিরিয়ে দেবার ক্ষমতা রাখত।
  • মাইক্রোসনোগ্রাম যন্ত্রের মাধ্যমে subsonic শব্দ (যার কম্পাঙ্ক সেকেন্ডে ২০ হার্ৎজের কম) শোনা যেত।
  • Ornithon যন্ত্র পাখিদের মানুষের মৌলিক বুদ্ধির প্রশিক্ষণ দিতে পারত।
  • কম্পিউডিয়াম যন্ত্রের মাধ্যমে শঙ্কু পরলোকের সঙ্গে যোগাযোগ করতেন। এর সাহায্যে তিনি হিটলার, সিরাজদৌল্লা, শেক্সপিয়ার প্রমুখ ব্যক্তিদের এমনকি প্রাগৈতিহাসিক পাখি টেরোডাকটাইল এর আত্মার সঙ্গেও যোগাযোগ করেন।
  • ডঃ ফ্র্যাঙ্কেস্টাইনের পদ্ধতি অনুসারে তৈরি এক্স ওষুধ কোনো মানুষের সমস্ত দোষগুলোকে প্রকাশ করতো আর অ্যান্টি এক্স মৃত মানুষকে জীবিত করে তুলতো।
Facebook Comments

You Might Also Like