ছোটগল্প সাহিত্য

জীবননামা – জুয়েল মিয়াজি

বিন, তোমার কাছে জীবন মানে কি মনে হয়? একটি সমুদ্র? যেখানে তুমি, অামি অামরা নিত্যদিন বেঁচে থাকি বিপদজনক প্রাণীর সাথে লড়াই করে। অথবা যেখানে প্রকৃতি প্রতিদিন নিত্যনতুন কৌশলে অামাদের ডুবিয়ে দেওয়ার চেষ্টায় থাকে! তবুও আমরা চেষ্টা করি ভেসে থাকতে। কিন্তু পারি না! না রবিন তুমি ভুল বলছ! অাসলে তুমি ভয় পাচ্ছ। তাই তুমি বারবার মরতে যাচ্ছ। কিন্তু রবিন বিশ্বাস করো, এটা সমাধান না।

আজকাল তোমার বারবার মরে যাওয়ার ইচ্ছেটা অামাকে ভীষণ ভাবিয়ে তুলছে। অবশ্য অামি তোমার দুখের গল্পগুলি শুনেছি। আমি তোমার হৃদয়ের মৃদু কম্পন শুনেছি! তুমি হাউমাউ করে কাঁদতে চেয়েও পার নি বলে দুঃখ করেছ! তুমি দুঃখ করেছ, ঈশ্বর তোমাকে ঠকিয়েছে। তিনি তোমাকে ভালোবাসেনি বলে ফুঁপিয়ে কেঁদোছ! রবিন, আগের মত আমি তোমাকে এখনো বলছি তুমি অন্যপথে হাঁট! তুমি তোমার মত থাক। আকাশ দেখ! দেখছ না কত বড় আকাশ! এই আকাশের দিকে তাকিয়ে থাক।তোমার দুঃখ থাকবে না। কারো ভালোবাসা পাওয়ার জন্য তোমাকে পাগলপ্রায় হওয়া চলবে না! বরং তুমি ভালোবাস অন্যকে। সুখী হবে! পৃথিবীতে তুমি ছাড়া তোমার অার কেউ অাপন নয়। কারো কথা ভেবে তোমাকে মরার কথা ভাবা চলবে না। অথচ তুমি কালকেও অামাকে বলেছিলে, আমার খুব মরে যেতে মন চাচ্ছে। অথচ তুমি জান না এখানে জীবন কত সুন্দর! তুমি উপভোগ করতে ভুলে গেছ! তোমার বুড়ো মা বাবার ছবি তোমাকে কষ্ট দিচ্ছে। তাদের অসহায়ত্ব দেখে তুমি তোমাকে নিষ্কর্মা দাবি কর! হতাশ হও!

তোমার কি কিছুই করার নেই? তোমার কত কিছুই করার অাছে বৈকি। নিজেকে গড়ে তোল! রবিন স্রোতের বিপরীতে হাঁটো! কারো অন্যায় আবদার, অন্যায় বিচার, কারো পক্ষপাতিত্ব তোমাকে কষ্ট দিচ্ছে দেখে আমি হাসছি। রবিন যে তোমাকে ভালোবাসে না, সে কষ্ট দিলে তুমি কষ্ট পাবে কেন? রবিন তাই করো যা করলে তুমি শান্তি পাবে। মরবে? না রবিন মরো না। শান্তি পাবে না! রবিন তোমার অভিযোগ ভুল! যদিও প্রকৃতি তোমাকে দারুণ কষ্ট দিয়েছে। তোমার অভিযোগ তোমাকে ঠকানো হয়েছে। আমি তর্কে যাব না, শুধু এটা বলব জীবন এমনই।

রবিন, চল আমরা আবারো জীবনের সজ্ঞায় ফিরে আসি। তোমার মতে জীবন সবার জন্য নয়। তুমি বলেছ প্রেমিকদের জন্য জীবন। তুমি তোমার বাহ্যিকতা নিয়ে কষ্ট করেছ। তুমি বলেছ অপ্রেমিকদের জন্য জীবন নয়। অথচ জান না তুমি কত বড় প্রেমিক। অন্যের কষ্ট যাকে ভাবায় সেই তো প্রেমিক। আমি জানি ঈশ্বর তোমায় মাঝে খুশবো ছড়ায় নি! তোমায় মায়াবী গড়ন দেয় নি, তুমি কয়েকবার নিজেকে অপুরুষ বলে দাবি করেছ। কিন্তু রবিন তুমি জান না পুরুষ মানে কি। শুধু লৈঙ্গিক চিন্তাভাবনায় কেউ পুরুষ অপুরুষ নয়। রবিন কারো ভুল ধরা তোমার কাজ নয়, ঈশ্বরের ভুল ধরার তো প্রশ্নই অাসে না। ঈশ্বর যা বোঝেন, তুমি তা বুঝ না। তুমি যদি মনে করো মহান অধিপতি তোমাকে ঠকিয়েছে। তবে তুমি অন্যপথে চলো। তবুও বেঁচে থাক। বাচঁতে বাঁচতে তুমি সঠিক পথের সন্ধান পাবে। যা হয় নি তা নিয়ে ভেবো না। বরং যা হবে তা নিয়ে স্বপ্ন দেখো। রবিন তুমি মোরো না।

রবিন! রবিন! রবিন হায়! তুমি এতই ভীতু যে বেঁচে থাকতে পারলে না। তুমি মরে গেলে কিন্তু আমাকে কেন তোমার রোগে আক্রান্ত করলে। রবিন জানো, আজকাল আমিও তোমার রোগে ভুগছি। আমারো খুব মরে যেতে মন চাচ্ছে। রবিন তোমার একটি কথা ঠিক ছিল, জীবন মানে শুধু না মরণ নয়। জীবন মানে শুধু বেঁচে থাকা নয়! কিন্তু রবিন আমি বাঁচতে চাই। যে সান্ত্বনা আমি তোমাকে দিয়েছিলাম, সে সান্ত্বনা আমি আমাকে দিচ্ছি। কিন্তু মন শান্ত হয় না। তবে কি অামি তোমার সাথে অন্যায় করেছি রবিন। আমি তো অভিনয় করেছি, অযথা নীতিবাক্য বিতরণ করেছি। সবাই যা করে। আমি কি অপরাধী? আপনারা কি অপরাধী নন? আচ্ছা পাঠক, আপনারাই বলুন। আপনারা যারা মানুষকে নীতিবাক্য শুনিয়ে বেঁচে থাকার প্রেরণা দেন তারা কি কেউ একথা অস্বীকার করতে পারবেন যে, মাঝে মাঝে আপনারও খুব মরে যেতে মন চায়! জীবনের কোন এক পর্যায়ে গিয়ে কি কখনো আপনার মনে হয় নি যে, জীবন মানে শুধু বেঁচে থাকা নয়?


jibonnama
Facebook Comments

You Might Also Like