ম্যাগাজিন রিভিউ

‘স্বাধীন বাংলা-পঞ্চদশ সংখ্যা’ রিভিউঃ শোভন সেনগুপ্ত

 

swadhin-bangla-fifteenth-issue

স্বাধীন বাংলা, পঞ্চদশ সংখ্যা | সম্পাদকঃ কেশব মুখোপাধ্যায় | প্রচ্ছদঃ সুহাস রায়

নেতাজিনগর, কলকাতা থেকে প্রকাশিত ‘স্বাধীন বাংলা’ পত্রিকাটি যতটা না সাংস্কৃতিক, তার থেকেও বেশি সামাজিক এবং সমাজের বাস্তব চিত্র, সুখ-দুঃখ ‘স্বাধীন বাংলা’র আত্মায় জড়িয়ে। পত্রিকাটির পঞ্চদশ সংখ্যার শুরুতেই সম্পাদক কেশব মুখোপাধ্যায়ের কলমে উঠে এসেছে ফরাক্কার জলবণ্টন এবং দীর্ঘদিনের ছিটমহল সমস্যা। তারপরেই বর্তমান প্রেক্ষাপটকে প্রসঙ্গ করে পুনঃপ্রকাশিত হয়েছে জ্যোতির্ময় দত্তের নিবন্ধ যা সাগরদ্বীপের ভবিষ্যৎ সম্ভাবনার দিকটি উন্মোচিত করে। ‘স্বাধীন বাংলা! তুমি তৃষিতেরে দাও পানি। বাণী দাও নির্বাকেরে’। (জ্যোতির্ময় দত্ত)

‘বাঙালি কয় প্রকার ও কী কী’ শিরোনামে সম্পাদকীয়তে গুরুত্ব পেয়েছে বাঙালি জাতির স্বভাব ও চারিত্রিক গুণ-বেগুণের দিকটি এবং সম্পাদকের দৃঢ় তীক্ষ্ণ কলমে বিক্ষুব্ধ প্রতিবাদ স্পষ্ট। তারপরেই মোট ছয়টি বহুমূল্য সাক্ষাৎকার যা চির অমলিন। সম্পাদক বিভিন্ন সময়কালে পৃথকভাবে এই সাক্ষাৎকারগুলি নিয়েছেন ভিন্ন বিষয়ে ভিন্ন দৃষ্টিভঙ্গিতে। শিবনারায়ণ রায়, অমলেন্দু দে, সুহাস রায়, রামানন্দ বন্দ্যোপাধ্যায়, তাপস সেন এবং অরবিন্দ মুখোপাধ্যায়ের সাথে সম্পাদকের কথোপকথনের মধ্যে দিয়ে সাক্ষাৎকারগুলি সম্পন্ন হয়েছে। পাশাপাশি অরুণ মিত্র, সুধী প্রধান, বিভাস চক্রবর্তী, জ্যোতির্ময় দত্তের কিছু গুরুত্বপূর্ণ চিঠি ও তার সঙ্গে সতীশচন্দ্র সামন্তের ‘বাংলাকে জাতীয় ভাষা করার স্বপক্ষে একটি ঐতিহাসিক ভাষণ’-এর সংগ্রহটি ‘স্বাধীন বাংলা’ পত্রিকার প্রাসঙ্গিকতা বহুমাত্রায় বাড়িয়ে দিয়েছে। পত্রিকায় প্রকাশিত প্রত্যেকটি সংগ্রহ এবং প্রত্যেকটি প্রতিবেদন অত্যন্ত সংবেদনশীল এবং গভীর তথ্যসমৃদ্ধ। ‘১৫ আগস্ট ? স্বাধীনতা ! ফুঃ’ নিবন্ধটিতে কেশব মুখোপাধ্যায় পাঠকদের আবারও স্মরণ করিয়ে দিয়েছেন যে ১৫ ই আগস্ট প্রকৃতপক্ষে বহুজাতিক ভারতবর্ষে হিন্দি সাম্রাজ্যবাদ প্রতিষ্ঠার দিন এবং ‘ভাষা’ বিষয়টি দিল্লীর স্বরাষ্ট্র দপ্তর কর্তৃক নিয়ন্ত্রিত। বাংলাদেশের বিশিষ্ট লেখক ডঃ সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী ‘পশ্চিমবঙ্গের একুশে ফেব্রুয়ারি’ নিবন্ধে ‘দূরদর্শন’কে বাঙালির জন্য অত্যন্ত বিপজ্জনক প্রতিষ্ঠান বলে চিহ্নিত করেছেন এবং ভারতবর্ষকে ‘পুঁজিবাদী রাষ্ট্র’ উল্লেখ করে বলেছেন ‘পুঁজিবাদ বৈষম্য সৃষ্টি করে; ভারতে সে বৈষম্য অব্যহত গতিতে বৃদ্ধি পাচ্ছে’। পরিশেষে পত্রিকার পক্ষ থেকে বাংলার জাতীয় নাট্যশালা গড়ে তোলার আহ্বান জানানো হয়েছে। একথা অনস্বীকার্য যে ১৭৬ পৃষ্ঠায় ঋদ্ধ ‘স্বাধীন বাংলা’র এই সংস্করণ সম্পাদকের প্রগাঢ় পরিশ্রম, নিষ্ঠা ও ভালোবাসার সন্তান।

– শোভন সেনগুপ্ত, সম্পাদক, দিগন্ত পত্রিকা

  • বাংলা পত্রিকা দপ্তর বিভাগে রিভিউয়ের জন্য  www.facebook.com/AmaderBanglaPatrika পেজে উল্লেখিত বিজ্ঞপ্তি অনুসরণ করবেন।

 

Facebook Comments